১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি সী-শেল পার্কের নিকট

0

সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক: বাংলাদেশের একটি গর্বিত প্রাতিষ্ঠান সী শেল প্রপার্টিজ। এদের রুপগঞ্জসহ বেশ কয়েকটি ব্রাঞ্জ রয়েছে। তবে আমরা সকলেই জানি এটি একটি সমাজ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। একটি সূত্রে জানা যায়, কিছুদিন আগে নারয়নগঞ্জ রুপগঞ্জ গুতিয়াবতে স্থানীয় সন্ত্রাসী বাহিনী সী-সেল প্রপার্টিজের নিকট প্রায় ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। চাঁদা দিতে অশ্বীকার করলে সী-শেল প্রপার্টিজের বাউন্ডারী ভেঙ্গে ফেলে এবং রুপগঞ্জ থানায় ০৬/০৬/১৯ ইং তারিখে ৬ জন সন্ত্রাসীকে আসামী করে একটি মামলা দ্বায়ের করে। মামলার ভিক্তিতে পারভেজ নামের এক সন্ত্রাসীকে পুলিশ গ্রেফতার করে। ফলে সন্ত্রাসী বাহিনী ক্ষিপ্ত হইয়া বিভিন্ন গনমাধ্যমে ভুল তথ্য দিয়ে সী-শেল প্রপার্টিসের বিরুদ্ধে সম্মানহানীমূলক অপপ্রচার সংবাদ প্রকাশ করায়। প্রতিষ্ঠানটিকে সমাজে হেয় ক্ষতি করার জণ্য উঠে পরে লেগেছে সাদ্দাম বাহিনী ও তার সহযোগী রফিকুল ইসলামসহ আরো অনেকে।

এদিকে আরো জানা যায়, বিভিন্ন এলাকার ভাড়াকৃত লোকমারফত একটি ভিক্তিহীন সংবাদ সম্মেলন করে থাকে উক্ত সাদ্দাম বাহিনী। অথচ উক্ত প্রতিষ্ঠানটি সকলের ভালবাসা ও সম্মানের একটি যায়গা। এদিকে সাদ্দাম বাহিনীর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতনসহ একাধিক মামলা রয়েছে। যাহা এফ আই আর নং-৬, তাং-৩০/১২/২০১২ ইং,ও এফ আই আর নং-৪৫-৫৭৬ তাং-২৪/০৯/২০১৭, এবং এফ আই আর নং-২৬ তাং-২৭/০৪/১৯ ইং।

এবিষয়ে এলাকাবাসি বলেন, তাদের কাজ মানুষের জমি দখল করা। যদি কেউ এবিষয়ে প্রতিবাদ কারার সাহস করে তাহলে জানটাকেই হারাতে হয় বলে এমনটাই অভিযোগ তুলে ধরেন। বন্ধু সিটি নামক যে প্রাতষ্ঠানটি রয়েছে তাহা ওই সন্ত্রাসী গ্রুপের। তবে রিহাবের তাদের কোন নিবন্ধন নেই এবং কোন সম্পত্তিও নেই। এদের কাজ মানুষের জমি দখল করে অন্যের কাছে বিক্রি করা। এটাই তাদের পেশা এবং নেশা। পূর্বাচল এলাকাটা তাদের দাপটে আজ সাধারন মানুষ অতিষ্ঠ। কিন্তু সী-শেল প্রপার্টিস তাদের বিরুদ্ধে মামলা করে এবং একজনকে রুপগঞ্জ থানা পুলিশ গ্রেফতার করলে এলাকার সাধারন মানুষ আজ সি-শেল প্রপার্টিজকে প্রশংসার দাবীদার রেখেছেন। এলাকাবাসি আরো বলেন, সাদ্দাম গ্রুপকে নির্মল করতে পারলে রুপগঞ্জ পূর্বাচল কিছুটা হলেও সন্ত্রাস মুক্ত হবে। তাই আইন-শৃঙ্খলার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে সন্ত্রাসীদের নির্মূলের দাবী জনিয়েছেন। তাহলে এলাকার মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারবে। আবার সাদ্দাম বাহিনী পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের নাম ব্যবহার করে আসছে।

সম্প্রত্তি, কিছুদিন আগে বিশিষ্ট শিল্পপতি ও যমুনা ব্যাকের পরিচালক মাহমুদুল হকের সী- শেল প্রপার্টিজস্থ নির্মানাধীন বাগান বাড়িতে চাঁদা আদায় ও ব্যপক ভাংচুরসহ নির্মান শ্রমীকদের সাদ্দাম গ্রুপ ব্যপক মারধর করেন। আবার সী- শেল কম্পানীর কারো নিকট বিক্রিত সম্পত্তি দেয়াল নির্মান করতে গেলেই উক্ত সন্ত্রাসী বাহিনী মোটা অংকের চাঁদা দাবী করেন।

এবিষয়ে সী-শেল প্রপার্টিজের চেয়ারম্যান মো: আমান উল্যাহ সাহেব বলেন, দির্ঘদীন ধরে আমার ক্রয়কৃত সম্পত্তির তাদের ভাগ দিতে হবে, নইলে এখানে ব্যবসা করতে পারবেন না বলে হুমকি প্রদান করে সাদ্দাম গ্রুপ। তিনি আরো বলেন, আমাদের কম্পানীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী বাহিনী যে সমস্ত অভিযোগ এনে মিডিয়াকে ভুল তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করিয়েছে তাহা সম্পূর্ন ভিক্তিহীন এবং মিথ্যা। এটি তাদের ছিল সবই সাজানো নাটক। কারন সী-শেল প্রাপার্টিজ ও পার্ক দেশের একটি সেবামূলক অণ্যতম প্রতিষ্ঠান।

Share.

About Author

Leave A Reply